অনির্দিষ্ট কালের কর্মবিরতিতে মুন্সীগঞ্জের দলিল লিখকরা

427

অনির্দিষ্ট কালের কর্মবিরতিতে মুন্সীগঞ্জের দলিল লিখকরা

সুমিত সরকার সুমন, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:

মুন্সীগঞ্জ সদর সাব-রেজিষ্ট্রার মাইকেল মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের প্রতিবাদে অনির্দিষ্ট কালের কর্মবিরতি পালন করছে দলিল লিখক সমিতি। দূর্নীতির প্রতিবাদে গত রবিবার থেকে তিন দিন ধরে চলা কর্মবিরতিতে অচল হয়ে পড়েছে মুন্সীগঞ্জের রেজিষ্ট্রেশন বিভাগ। ফলে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে অন্যদিকে ভোগান্তিতে পড়েছে জনগন।কর্মসূচীর মাধ্যমে এই দূর্নীতি গ্রস্ত কর্মকর্তার অপসারনের দাবী জানায় দলিল লিখক ও সাধারণ জনগন।

নতুন এই সাব-রেজিষ্ট্রার যোগ দেয়ার পর থেকেগত দুই মাস ধরে অতিরিক্ত অর্থ ছাড়া কোন দলিলই রেজিষ্ট্রি করা সম্ভব হয়নি বলে জানান দলিল লিখকরা। রোববার থেকে কর্মবিরতি পালন শুরু করে দলিল লিখক সমিতি। এর আগেও তার অন্যায়ের প্রতিবাদে কলম বিরতি পালন করা হয়ে ছিল কিন্তু তিনি কোন সমঝোতায় আসেননি এই কর্মকর্তা।

মুন্সীগঞ্জ দলিল লিখক সমিতির দলিল লিখকরা জানান, আমরা যেভাবে আইন অনুযায়ী দলিল রেজিষ্ট্রি করে আসছি সেভাবে এখন করতে পারছিনা। নতুন এই সাব-রেজিষ্ট্রার সকল প্রকার দলিল থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে যাপূর্ববর্তী অফিসাররা এমনটা করেননি। তিনি দলিল কে প্রথমে ত্রুটিপূর্ণ বলছে পরেটাকা দিলেই রেজিষ্ট্রি করেদিচ্ছে। দলিল লিখক রাতার কথার প্রতিবাদ করলে দলিল আটকে রাখেএবং দলিল ছুড়ে ফেলে দেয়। এই সাব-রেজিষ্ট্রার মুন্সীগঞ্জে বর্তমানে কমিশনে দলিল (প্রয়োজনে বাড়িতে গিয়ে রেজিষ্ট্রি) রেজিষ্ট্রি বন্ধ করে দিয়েছেন। এতে করে ভোগান্তিতে পড়েছে মুন্সীগঞ্জে রেজিষ্ট্রি করতে আসা মানুষজন। তার অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের কথা জানা জানি হওয়ার ফলে অফিসে দলিলকমে গেছে এতে করে দলিল লেখকরা যেমন কষ্টে আছে তেমনি সরকারের রাজস্বও কমে গেছে। প্রশাসনে ওনার এক আত্মীয় আছেন বলে ওনি দাপটএকটু বেশি দেখা নবলে জানান অনেক দলিল লিখক।

মুন্সীগঞ্জ দলিল লিখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন জানান, আমরা দীর্ঘদিন ধরে দলিল লিখে আসছি কখনও অফিসে এমনটা দেখিনি। তার পরেও আমরা চেষ্টা করেছি তাকে বুঝানোর জন্য কিন্ত তিনি কারোর কথা শুনেননা। আমরা আই জি আর সহসংশ্লিষ্ট সকল দায়িত্ব শীল ব্যাক্তিদের জানানোর উদ্যোগ নিয়েছি।

মুন্সীগঞ্জ দলিল লিখক সমিতির সভাপতি মো. সাইফুল ইসলাম জানান, এক জনসাব-রেজিষ্ট্রার এভাবে আমাদের সকলকে জিম্মি করে জনগনের কাছ থেকে টাকা আদায় করতে পারেননা। জনস্বার্থে আমরা আরো কঠিন কর্মসূচীতে যাবো। ওনি যেভাবে অফিস চালাতে চাচ্ছেন সেভাবেএর আগে কেউ এমন চেষ্টাও করেননি।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সদর সাব-রেজিষ্ট্রার মাইকেল মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা। আমি নিয়ম মাফিক কাজ করার চেষ্টা করি। আমি দলিল লেখকদের সাথে সমঝোতার চেষ্টা করছি। তারা যেভাবে বলবে সেভাবেই হবে।